নীড়পাতা » শেষের পাতা » মেডিকেল ভার্সিটির সিন্ডিকেট সভায় ২৪ প্রস্তাবনা অনুমোদন

নির্মিত হচ্ছে ফৌজদারহাটের ২৪ একর ভূমিতেই

মেডিকেল ভার্সিটির সিন্ডিকেট সভায় ২৪ প্রস্তাবনা অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফৌজদারহাটে ২৪ একর ভূমির ওপর নির্মিত হচ্ছে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সিন্ডিকেট সভায় তা অনুমোদন করা হয়েছে। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনবল কাঠামো, নীতিমালা প্রণয়ন, উন্নয়ন, অর্থ উপ-কমিটি গঠনসহ ২৪ টি প্রস্তাবনা অনুমোদন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল ২টায় ঢাকায় লিয়াজোঁ কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডা. ইসমাঈল খান। সভায় স্বাধীনতা-উত্তর স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাবিজ্ঞানে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হয়। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রাখায় সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী এবং দক্ষিণ জেলা আওয়ামী

লীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।
চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা চট্টগ্রামবাসীর প্রাণের দাবি ছিল। সেই দাবি পূরণ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞা জ্ঞাপন করা হয়।
সি-িকেট সভায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় সি-িকেট সদস্য ড. হাছান মাহমুদ এমপি, এবি তাজুল ইসলাম এমপি, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. ইউসুফ আলী মোল্লা, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক নিউরোসার্জন অধ্যাপক ডা. লুৎফর আনোয়ার কাদেরী (এলএ কাদেরী), স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মিসেস বদরুন্নেসা, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া, বাংলাদেশ বিএমডিসি’র চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট ডা. শেখ শফিউল আজম, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবদুল্লাহ আল হাসান চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরো মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. আবু নাসের রেজভী, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মো. জাহাঙ্গীর, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ডা. মহসিনুজ্জামান চৌধুরী, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থবিভাগের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা সাইফুল আলম হামেদী ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য নওশের আলী খান।
সভায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জন্য জনবল কাঠামো, নীতিমালা প্রণয়ন, গভর্নিং কমিটি, উন্নয়ন, অর্থ উপ-কমিটি গঠনসহ ২৪টি প্রস্তাবনা উপস্থাপন করা হয়। উত্থাপিত প্রস্তাবনা সংযোজন-বিয়োজনের পর সি-িকেট সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে অনুমোদন করা হয়েছে। সি-িকেটের পরবর্তী সভা (দ্বিতীয় সভায়) ফৌজদারহাট ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
২০১৬ সালে ১৭নং আইনে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের আইন প্রণয়ন করা হয়। এরপর মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সকল প্রক্রিয়া শুরু হয়।
২০১৭ সালের ১৭ মে ভিসি নিয়োগের কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। তারই ধারাবাহিকতায় চলতি (২০১৭-১৮) শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস শিক্ষার্থীরা চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ভর্তি হয়। এসব শিক্ষার্থীরা আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ভর্তি হত।
সিন্ডিকেট সভায় অনুমোদনের পর ভবন নির্মাণ প্রক্রিয়াসহ অন্যান্য কার্যক্রম শুরু করা হবে বলে জানান সি-িকেট সদস্য ডা. শেখ শফিউল আজম। তিনি বলেন, একনেক সভায় বরাদ্দ অনুমোদন করায় এখন শুধু আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকের মাধ্যমে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করবে।
শেখ শফিউল আজম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দিয়েছেন। ভবন নির্মাণসহ অন্যান্য কার্যক্রমও দ্রুত বাস্তবায়ন হবে বলে আশা করি।

Share
  • 1
    Share