নীড়পাতা » সম্পাদকীয় » পরিবেশ রক্ষার জন্য জলাভূমি সংরক্ষণ আবশ্যক

পরিবেশ রক্ষার জন্য জলাভূমি সংরক্ষণ আবশ্যক

প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার অন্যতম প্রধান উপাদান হচ্ছে জলাভূমি। কিন্তু নদীমাতৃক বাংলাদেশে উদ্বেগজনক হারে জলাভূমি হারিয়ে যাচ্ছে। এতে জলাভূমির ওপর নির্ভরশীল মানুষ ও জীববৈচিত্র্যের জীবনযাত্রা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে চরমভাবে। পরিবেশের ওপরও পড়ছে এর বিরাট নেতিবাচক প্রভাব। এ প্রেক্ষাপটে জলাভূমি রক্ষায় জনসচেতনতা সৃষ্টিসহ বহুমাত্রিক পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি হয়ে পড়েছে। তবে, শুধু কিছু লোকদেখানো কর্মসূচি দৃশ্যমান হলেও দুঃখজনকভাবে জলাভূমি রক্ষায় কোনো জোরালো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। এতে জলাভূমিদস্যুদের খপ্পরে পড়ে জলাভূমি হারিয়ে যাওয়ার পথই মসৃণ হচ্ছে শুধু। নগর-মহানগর তো বটেই গ্রামীণ জনপদগুলোর বিদ্যমান জলাশয়গুলোও এখন এক শ্রেণির মানুষের লোলুপ শিকারে পরিণত হয়েছে।
প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা ও জাতীয় অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে জলাভূমির ভূমিকা অস্বীকারের সুযোগ নেই। হাওর-বাওড়, বিল-ঝিল, ডোবা-নালা, পুকুর-দীঘি ইত্যাদি এক সময় ছিল বিভিন্ন জাতের মাছের খনি স্বরূপ। কিন্তু এখন এসব জলাভূমি সংরক্ষণের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে। ফলে মাছের আকাল যেমন দেখা দিয়েছে। তেমনি বিনষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্যও। পরিবেশবিজ্ঞানীরা এ ব্যাপারে কঠোর সতর্কবাণী উচ্চারণ করলেও তা যেন সংশ্লিষ্টদের কর্ণগোচর হচ্ছে না। অন্তত প্রাকৃতিক ভারসাম্যের স্বার্থে এখনই বিষয়টি সরকারের আমলে নেয়া উচিত। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার প্রধান উপাদান জলাভূমিকে বিপন্ন রেখে পরিবেশ দূষণের বিরুদ্ধে যতোই হৈ চৈ করা হোক না কেনো কাক্সিক্ষত সুফল আসবে না। আমরা মনে করি, সময় এখনো ফুরিয়ে যায়নি। পরিবেশের স্বার্থে জলাভূমি রক্ষায় এখনই সরকারকে তৎপর হওয়া উচিত। পরিবেশ-বান্ধব জলাভূমি রক্ষায় জনগণকে সচেতন করা এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার স্বার্থে জলাভূমি রক্ষায় সরকারের সুচিন্তিত ও সময়োপযোগী কর্মসূচি দেখতে চাই আমরা।